Gmail! | Yahoo! | Facbook

পাকিস্তানের প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতা মাওলানা সামিউল হক ছূরিকাঘাতে নিহত

FacebookTwitterGoogle+Share

samiul hoque৩ নভেম্বর ২০১৮ঃ পাকিস্তানের প্রভাবশালী ধর্মীয় নেতা ও সাবেক সিনেটর মাওলানা সামিউল হক তাঁর রাওয়ালপিন্ডির নিজ বাসায় নিহত হয়েছেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মাওলানা সামিউল হকের ছেলে মাওলানা হামিদুল হক জানান, নিজ বাসাতেই তার পিতাকে শহীদ করা হয়।

তার এক আত্মীয় দাবি করছেন, অজ্ঞাতনামা হত্যাকারীরা এসে তার রাওয়ালপিন্ডির বাড়িতে তাকে ছুরি মেরে হত্যা করে।

তাঁর মৃত্যুর সংবাদটি এমন সময় আসলো যখন পাকিস্তানের সাধারণ জনগণ ধর্ম অবমাননাকারী খ্রিস্টান মহিলা বিবি আসিয়ার মুক্তি দেওয়ায় প্রতিবাদে বিক্ষোভ করছে।

মাওলানা সামিউল হক বিবি আসিয়া ইস্যুতে ভিক্ষোভে অংশ নিতে বের হয়েছিলেন। কিন্তু রাস্তা অবরোধ থাকার কারণে তিনি বাসায় ফিরে আসেন।

মাওলানা সামিউল হকের বয়স ৮২ বছর। তিনি খাইবার পাখতুনের দারুল উলুম হক্কানীয়া মাদরাসার প্রধান পরিচালক ছিলেন। তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (এস) এর প্রধান ছিলেন। তিনি ১৯৮৫ থেকে ১৯৯৭ পর্যন্ত পাকিস্তানের সিনেটের ছিলেন।

আফগান-পাকিস্তান সীমান্তের উভয় পাশের তালেবানদের মাঝে তিনি একজন প্রভাবশালী ব্যাক্তি ছিলেন। গত মাসে হক্কানীয়া মাদরাসায় আফগানিস্তানের উচ্চপর্যায়ের এক প্রতিনিধিদল তার সাথে আফগান সমস্যা সমাধানে পরামর্শ চাইতে গিয়েছিল।

এতে মাওলানা সামিউল হক তাদের বলেন, আফগান সমস্যাটি খুবই জটিল। আদতে তার পক্ষে এর সমাধান দেওয়া সম্ভবও নয়।

‘ফাদার অব দ্য তালেবান’ বলে পরিচিত এক ৮০ বছর বয়স্ক মুসলিম নেতা সামিউল হককে  তালেবান আন্দোলনের প্রধান নেপথ্য পুরুষ হিসেবে গণ্য করা হয়। কারণ এই আন্দোলনের প্রথম সারির নেতাদের শিক্ষক ছিলেন তিনি।

পাকিস্তানের দূর্গম একটি এলাকায় সামিউল হককে স্বাগত জানাতে যাচ্ছেন তার সমর্থকরা।পাকিস্তানের দূর্গম একটি এলাকায় সামিউল হককে স্বাগত জানাতে যাচ্ছেন তার সমর্থকরা।

তার ছাত্রদের একজন ছিলেন তালেবান নেতা মোল্লা ওমর।

মোল্লা ওমর আশির দশকে তার সহপাঠীদের নিয়ে আফগানিস্তানে যান সোভিয়েত সেনাদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে।

পরে এই মোল্লা ওমরই তালেবান প্রতিষ্ঠা করেন। আফগানিস্তান থেকে সোভিয়েত ইউনিয়ন চলে যাওয়ার পর গৃহযুদ্ধ এবং চরম বিশৃঙ্খলার মধ্যে ১৯৯৬ সালে তালেবান ক্ষমতা দখল করে।

তালেবান আন্দোলনের সঙ্গে সম্পর্ক সত্ত্বেও সামিউল হক যে মাদ্রাসা চালাতেন, পাকিস্তানে সেটির কোন অসুবিধা হয়নি। এটি পাকিস্তানের আঞ্চলিক সরকারগুলোর কাছ থেকে অর্থ বরাদ্দ পেত।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান সামিউল হকের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে বলেছেন, পাকিস্তান এক গুরুত্বপূর্ণ ইসলামী নেতাকে হারিয়েছে।

মন্তব্য