Gmail! | Yahoo! | Facbook

‘ব্লু হোয়েল’ তদন্তের নির্দেশনা বিটিআরসিকে

FacebookTwitterGoogle+Share
bluewhale_fkঢাকা, ৯ অক্টোবর ২০১৭ঃ ‘ব্লু হোয়েল গেইম’ বাংলাদেশে কারও আত্মহত্যার কারণ হয়েছে কি না, তার তদন্ত করতে বিটিআরসিকে বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

ঢাকার এক স্কুলছাত্রীর বাবা তার মেয়ের আত্মহত্যার জন্য এই ইন্টারনেট গেইমকে দায়ী করার পর তা গণমাধ্যমে দেখে এই নির্দেশনা দেন তিনি।

মন্ত্রী সোমবার মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “বিষয়টি আমার নজরেও এসেছে। আমি আজ দুপুরে বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে (শাহজাহান মাহমুদ) নির্দেশনা দিয়েছি, বিষয়টি তদন্ত করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য।”

ওই ছাত্রী আলোচিত এই গেইম খেলে আত্মহত্যায় প্ররোচিত হয়েছিলেন কি না এবং বাংলাদেশে থেকে এই গেইম খেলা হচ্ছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে বিটিআরসিকে।

এদিকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বাংলাদেশে ‘ব্লু হোয়েল গেইম’ লিংক বন্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে এবং এর উপর সতর্ক নজর রাখা হচ্ছে।

সোমবার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগে এক অনুষ্ঠান শেষে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নে বলেন,

“আমরা সব সময় খেয়াল করছি কতগুলো লিংক থেকে এগুলো করা হচ্ছে। গোয়েন্দা সংস্থা এবং বিটিআরসির সঙ্গে কথা বলে সেগুলো ব্লক করার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি আমাদের আইসিটি ডিভিশনের যে বিডিসিআইআরটি আছে তারাও সতর্ক নজর রাখছে।”

ইন্টারনেটে প্রতিনিয়ত এই ধরনের ঝুঁকি আসার বিষয়টি তুলে ধরে তা প্রতিরোধে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন পলক।

‘ব্লু হোয়েল’ বা ‘ব্লু হোয়েল চ্যালেঞ্জ’ একটি অনলাইন গেইম, যা অংশগ্রহণকারীকে মৃত্যুর পথে নিয়ে যায়। নীল তিমিরা মারা যাওয়ার আগে জল ছেড়ে ডাঙায় ওঠে যেন আত্মহত্যার জন্যই- সেই ধারণা থেকে এই গেইমের নাম হয়েছে ‘ব্লু হোয়েল’।

এই গেইমে খেলোয়াড়দের সামনে চ্যালেঞ্জ হিসেবে বিভিন্ন কাজ করতে দেওয়া হয়, শুরুতে হালকা কিছু কাজ দেওয়া হলেও ধীরে ধীরে ভয়ঙ্কর সব কাজ দেওয়া হয়। সব শেষে চূড়ান্ত কাজ হিসেবে খেলোয়াড়কে আত্মহত্যা করতে বলা হয়।

ব্লু হোয়েল গেইম তৈরিকারীদের লক্ষ্য বিষাদগ্রস্ত তরুণ-তরুণীরা 

২০১৩ সালে রাশিয়ায় ‘এফ৫৭’ নামে যাত্রা শুরু করে গেইমটি। নিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত ফিলিপ বুদেইকিন নামের এক সাবেক মনোবিদ্যা শিক্ষার্থী এই গেইম তৈরি করেন।

তার দাবি, এর উদ্দেশ্য হচ্ছে সমাজে যাদের কোনো মূল্য নেই বলে তিনি বিবেচনা করেন তাদেরকে আত্মহত্যার দিকে প্ররোচিত করার মাধ্যমে সমাজকে ‘পরিষ্কার’ করা।

এই গেইম খেলে ১৬ কিশোরীর আত্মহত্যার পর বুদেইকিনকে রাশিয়ায় আটক করা হয়।

রাশিয়ায় যাত্রা শুরু করলেও পরে তা অন্য দেশেও ছড়িয়ে পড়ে। ভারতে এই গেইমটি খেলে কয়েকজনের আত্মহত্যার খবর আসার পর দেশটির সরকার ‘ব্লু হোয়েল’র মতো বিপজ্জনক অনলাইন গেইমের লিঙ্ক বন্ধ করার নির্দেশ দেয়।

মন্তব্য