Gmail! | Yahoo! | Facbook

আলজাজিরার পাশে বিশ্ব মিডিয়া

FacebookTwitterGoogle+Share

ALJ৩০ জুন ২০১৭ঃ সৌদি জোটের চাপের মুখে থাকা কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার সম্প্রচার অব্যাহত রাখার পে সরব হয়েছে বিশ্বের শীর্ষ সংবাদমাধ্যমগুলোর জোট ডিজিটাল কনটেন্ট নেক্সট। বিবিসি, গার্ডিয়ান, নিউ ইয়র্ক টাইমস ও ওয়াশিংটন পোস্টের মতো শীর্ষ সংবাদমাধ্যমগুলো এ জোটভুক্ত। গত সোমবার এক বিবৃতির মাধ্যমে ডিজিটাল কনটেন্ট নেক্সট আলজাজিরার প্রতি সংহতি প্রকাশ করে।

ফক্স নিউজ, এবিসি নিউজ, আলজাজিরা, ব্লুমবার্গ, বিজনেস ইনসাইডার, সিএনবিসি, ডিসকোভারি, ফোর্বস, ইএসপিএন, ফরেন পলিসি, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক, এনপিআর, স্লেট, ইউএসএ টুডের মতো শীর্ষ সংবাদমাধ্যমগুলোও রয়েছে জোটটিতে। সৌদি জোটের ভূমিকাকে আজজাজিরার কণ্ঠরোধের মধ্য দিয়ে সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণের পাঁয়তারা হিসেবে দেখছেন তারা। এর আগে কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস, নিউ ইয়র্ক টাইমস ও দ্য গার্ডিয়ানও আলজাজিরা বন্ধ করতে কাতারের ওপর চাপ প্রয়োগের নিন্দা জানায়।
গত ৫ জুন ‘সন্ত্রাসবাদে’ সমর্থন দেয়ার অভিযোগে কাতারের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেয় মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশ। ২৩ জুন সৌদি নেতৃত্বাধীন চার আরব দেশের প থেকে অবরোধ প্রত্যাহারে ১৩টি শর্ত দেয়া হয় কাতারকে। এর একটি শর্ত হলো আলজাজিরা বন্ধ করে দেয়া।
বিবৃতিতে জোটটি জানায়, ‘আমরা সংবাদমাধ্যম ও সাংবাদিকের স্বাধীনতাকে সমর্থন করি। সাংবাদিক বা সংবাদমাধ্যমের কণ্ঠ রুদ্ধ করা এর পরিপন্থী।’ আলজাজিরা বিশ্বের প্রভাবশালী প্রধান ধারার সংবাদমাধ্যমগুলোর একটি। কাতার ও প্রতিবেশী দেশগুলোর দীর্ঘ দিনের বিবাদের উৎস এটি। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর অভিযোগÑ আলজাজিরা পপাতপূর্ণ সংবাদ উপস্থাপন করে এবং আঞ্চলিকভাবে সমস্যা সৃষ্টি করে। এ ছাড়া এ সংবাদমাধ্যমটি আরব দেশগুলোর অভ্যন্তরীণ ইস্যু নিয়েও নাক গলায় বলে অভিযোগ করে থাকে তারা। অবশ্য বরাবরই সেই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে আলজাজিরা।
এবার কাতারের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের অংশ হিসেবে সেই সংবাদমাধ্যমটি বন্ধ করে দেয়ার শর্ত দিয়েছে সৌদি আরব, মিসর, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও বাহরাইন। অবরোধ প্রত্যাহারে কাতারকে সৌদি জোট আলজাজিরা বন্ধের যে শর্ত দিয়েছে, তাকে ‘মিডিয়ার বহুমুখী কণ্ঠস্বরের প্রতি আঘাত’ হিসেবে দেখছে জাতিসঙ্ঘের মানবাধিকার কমিশন। কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে এ কথা জানা গেছে। ইন্ডিপেন্ডেন্ট

মন্তব্য