Gmail! | Yahoo! | Facbook

সন্ত্রাসী সন্দেহে তিন মাসের শিশুকে তলব

FacebookTwitterGoogle+Share

harverde১৭ এপ্রিল ২০১৭ঃ সন্ত্রাসী সন্দেহে তিন মাস বয়সের এক শিশুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে লন্ডনের মার্কিন দূতাবাস। ভিসা ফরমে এক প্রশ্নের উত্তরে ভুল করে ‘না’-এর বদলে ‘হ্যাঁ’-তে টিক দিয়েছিলেন শিশুটির দাদা। এতে এ বিপত্তি ঘটে।

তলব জারির পর তিন মাসের শিশু হার্ভেকে পরিবারের সঙ্গে ১০ ঘণ্টার পথ পাড়ি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসে যেতে হয়। ইংল্যান্ডের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের চেশারের পয়েনটনে তাদের বাড়ি থেকে দূতাবাস যথেষ্ট দূরে। মড়ার উপর খাঁড়ার ঘায়ের মতো ঠিক সময়ে ফ্লাইটও ধরতে পারেনি হার্ভে ও তার পরিবার। এতে তাদের অতিরিক্ত তিন হাজার পাউন্ড দিয়ে আবার টিকিট কাটতে হয়।

শিশুটির দাদা পল কেনিয়ন বলেন, ভুলের চড়া মূল্য দিতে হয় তাঁদের।

দ্য গার্ডিয়ান ও দ্য ডেইলি মেইলের খবরে জানানো হয়, ইলেকট্রনিক সিস্টেম ফর ট্রাভেল অথরাইজেশনের (ইসটিএ) ইমিগ্রেশন ফরমের প্রশ্নটি ছিল, আপনি কি কখনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, চরবৃত্তি, অন্তর্ঘাত বা গণহত্যার সঙ্গে জড়িত ছিলেন? হার্ভের দাদা কেনিয়ন এর উত্তরে ‘না’-এর বদলে ভুল করে ‘হ্যাঁ’-তে টিক দিয়ে ফেলেন।

ঘটনার পরপরই নিজের ভুল স্বীকার করেন দাদা। তবে তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করতে পারছি না, সাধারণ একটি ভুল তাঁদের চোখে পড়ল না। তিন মাসের শিশু কারও ক্ষতি করতে পারে না, এটুকুও তাঁরা বুঝতে পারলেন না।’

কেনিয়ন ডেইলি মেইলকে আরও বলেন, ‘আমি নাতি ও তার মায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়েছিলাম। কিন্তু তিন মাসের শিশু সাক্ষাৎকার দেবে কী করে। সে তো কথাই বলতে পারে না।’

দাদা জানান, হার্ভে পুরো সময়টায় একবারও কাঁদেনি। তিনি মজা করে বলেন, ‘হার্ভে কখনোই গণহত্যা বা গুপ্তচরবৃত্তিতে জড়িত নয়। তবে ওই সাক্ষাৎকারের সময় সে বেশ কয়েকটি ন্যাপি নষ্ট করেছে। যদিও আমি দূতাবাসের লোকদের ব্যাপারটি জানাইনি।’

হার্ভের দাদা বলেন, কেউ সন্ত্রাসী হলে নিশ্চয় তা স্বীকার করে ভিসা ফরমে ‘হ্যাঁ’-তে টিক দিতেন না।

তবে এ ঘটনায় মার্কিন দূতাবাস এখন পর্যন্ত কোনো মন্তব্য করেনি।

মন্তব্য