Gmail! | Yahoo! | Facbook

বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস আজ

FacebookTwitterGoogle+Share

handwashing-dayঢাকা, ১৫ অক্টোবর ২০১৬ঃ বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস আজ। দিবসটি মোটেও হাস্যকর নয়, বরং হাত ধোয়ার গুরুত্ব কতখানি সেটা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্যই এই উদ্যোগ। এক গবেষণায় দেখা গেছে, খাবার ও পানির মাধ্যমে যেসব রোগ ছড়ায়, তার প্রতি চারজনের একজন আক্রান্ত হন শুধু হাত না ধোয়ার কারণে।
হাত না ধুলে জীবাণুরা আমাদের নাজুক দেহে হামলা শুরু করবে, আর আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের ছন্দপতন ঘটে নেমে আসবে ভোগান্তি। তার চেয়ে হাত ধোয়ার মতো সহজ অভ্যাসটুকু গড়ে তুললে সব ভোগান্তি আর রোগবালাই থেকে মুক্ত থাকতে পারি।
বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালন করা হচ্ছে। প্রতিদিন সাবান দিয়ে হাত ধোয়া অভ্যাসে পরিণত করতে এ দিনটি সারা বিশ্বের মানুষদের অনুপ্রাণিত ও সংগঠিত করে থাকে। নানা রোগবালাই প্রতিরোধে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া যে জরুরি দিবসটি মানুষের মাঝে সে সচেতনতাও জাগ্রত করে।
দিবসটি পালনে বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।
এ উপলক্ষে এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ আজ সকাল সাড়ে ৮টায় জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণ থেকে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার বের করেছে। এছাড়া সকাল সাড়ে ৯টায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে স্থানীয় সরকার বিভাগের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হচ্ছে আলোচনা সভা। এতে প্রধান অতিথি স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন।
হাত ধোয়া শিশুদের জন্য খুবই জরুরি। প্রতিবছর পাঁচ বছরের নিচের ৩ দশমিক ৫ মিলিয়ন শিশু ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় মারা যায়। শিশুরা যদি হাত ধোয় এবং শিশুদের খাবার তৈরি করতে যদি অভিভাবকরা হাত ধুয়ে নেন, তবে এ মৃত্যু ২৫ শতাংশ কমবে। পাকিস্তানে এক গবেষণায় দেখা গেছে, হাত ধোয়ার ফলে শিশুদের শ্বাসতন্ত্রের রোগ অর্ধেক কমে গেছে। হাত ধোয়ার ফলে সবচেয়ে বেশি উন্নতি হয় ডায়রিয়া পরিস্থিতির।
তবে এটা শুধু সরকারের একার দায়িত্ব নয়। সমাজের সর্বস্তরের মানুষের উচিত সঠিক নিয়মে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার ব্যাপারে নিজে সচেতন হওয়া এবং অন্যদের সচেতন করা।

মন্তব্য