Gmail! | Yahoo! | Facbook

সরকারীভাবে বোরো ধান ক্রয় না করে সরকার কৃষকদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে: খেলাফত মজলিস

FacebookTwitterGoogle+Share

কৃষকরা বোরো ধানের ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় খেলাফত মজলিসের গভীর উদ্বেগ
km logoঢাকা, ১৬ মে ২০১৯: কৃষকরা উৎপাদিত বেরো ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে ধানক্ষেতে আগুন দিয়ে ধান পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ এবং ধানের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে সরকারের কোন রকম পদক্ষেপ না নেয়ার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে খেলাফত মজলিসের আমীর অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাক ও মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের বলেছেন, সরকার ও এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ির কারসাজির কারণে কৃষকরা বোরো ধানের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না। উৎপাদন খরচের চেয়ে বহু কম দামে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে কৃষকদের। বর্তমানে বাজারে ধানের যে মূল্য তাতে বিঘাপ্রতি দুই থেকে তিন হাজার টাকা লোকসান হচ্ছে কৃষকদের। অথচ বাজারে চালের দাম চড়া। কৃষকদের লোকসান দেয়ার সংগতি নেই। এ অবস্থায় হতাশ ও বিক্ষুব্ধ কৃষকরা ধান না কেটে জমিতেই ধান পুড়িয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে। দেশের কৃষক সমাজ আজ সর্বশান্ত হয়ে পড়েছে। সরকার ধানের যে মূল্য নির্ধারণ করেছে কৃষকরা তার অর্ধেকও পাচ্ছে না। কুষকদের এ দৃরাবস্থায় সরকারে কোন ইতিবাচক পদক্ষেপ নেই যা অত্যন্ত হতাশাজনক। নির্ধারিত মূল্যে প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে সরকারীভাবে বোরো ধান ক্রয় না করে সরকার কৃষকদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কৃষকরা ফসল উৎপাদন করে। তারা যদি ফসলের উৎপাদন খরচও না পায়, লোকসানের সম্মুখীন হতে হয় তবে কৃষকরা সর্বশান্ত হবে কৃষিকাজে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে। এটা জাতির জন্য বড় ধরণের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। তাই কুষকদের বাঁচাতে হবে। কৃষকদের পাশে দাঁড়াতে হবে।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় কৃষকদের লোকসানের হাত থেকে বাঁচাতে অবিলম্বে মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের কাছ থেকে সরকারীভাবে সরকার নির্ধারিত মূল্য মনপ্রতি ১ হাজার ৪০ টাকা দরে বোরো ধান ক্রয় করার পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানান।

মন্তব্য