Gmail! | Yahoo! | Facbook

বাংলা নববর্ষ ১৪২৬

FacebookTwitterGoogle+Share

bangla new yearঢাকা, ১৪ এপ্রিল ২০১৯ঃ তোরা সব জয়ধ্বনি কর/ঐ নূতনের কেতন ওড়ে কাল-বোশেখীর ঝড়….। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের এই কবিতার মতোই নতুনের জয়গান নিয়ে বছরঘুরে আবার এসেছে পয়লা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ ১৪২৬। পুরনো দিনের দুঃখ, গ্লানি, হতাশা দূর করে আসবে নতুন ভোর। যে ভোরে উদিত হবে নতুন সূর্য। কালবৈশাখী ঝড়ঝঞ্ঝা সব উপেক্ষা করে এক নতুনের শুভবারতা নিয়ে এসেছে বৈশাখ। নব উদ্যমে সাজবে পৃথিবী, এটাই সবার প্রত্যাশা।
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট তার বাণীতে বলেছেন, বাংলা নববর্ষ বাঙালি সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অংশ। এ উৎসব সার্বজনীন ও অসাম্প্রদায়িক। এর মধ্যে নিহিত রয়েছে বাঙালির আত্মপরিচয় এবং জাতিসত্তা বিকাশের শেকড়। তিনি তার বাণীতে অতীতের গ্লানি, দুঃখ, জরা মুছে; অসুন্দর ও অশুভ পেছনে ফেলে নতুন কেতন উড়িয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ জাতীয় জীবনে আরো সম্প্রীতি ও সমৃদ্ধি বয়ে আনুক- এ প্রত্যাশা করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, নতুন বছরের প্রথম দিনে আমরা অতীতের গ্লানি ভুলে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় নিয়ে আশায় বুক বাঁধি। দেনা-পাওনা চুকিয়ে নতুন করে শুরু হয় জীবনের জয় গান। পয়লা বৈশাখ তাই যুগ যুগ ধরে বাঙালির মননে-মানসে শুধু বিনোদনের উৎস নয়, বৈষয়িক বিষয়েরও আধার। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলা নববর্ষ এবং বাঙালি জাতীয়তাবাদ পরস্পর সম্পর্কযুক্ত। বাঙালি জনগোষ্ঠী বর্ষবরণ উৎসবকে ধারণ করেছে তাদের জীবনযাত্রা ও সংস্কৃতির অন্যতম অনুষঙ্গ হিসেবে।
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাণী দিয়েছেন। তিনি তার বাণীতে নববর্ষের নতুন আলোতে দেশের সকল মানুষের সুখ ও শান্তি কামনা করেন।

মন্তব্য