Gmail! | Yahoo! | Facbook

বায়তুল মোকাররমে আল মাহমুদের জানাজা অনুষ্ঠিত

FacebookTwitterGoogle+Share

janaja-al mahmudঢাকা, ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ঃ আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদের নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বাদ যোহর জাতীয় মসজিদ বাইতুল মোকাররমে কবির জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

জানাজায় ইমামতী করেন আল্লামা শাহ আতাউল্লাহ হাফেজ্জী। জানাজায় দেশের বিশিষ্টজনসহ হাজার হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

জানাজা উপলক্ষে বাইতুল মোকাররমের মূল মসজিদ, উত্তর, দক্ষিণ ও পূর্ব গেইট প্রাঙ্গণ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়।

জানাজায় অংশগ্রহণ করেন সাবেক বিচারপতি মুহাম্মাদ আবদুর রউফ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মোস্তফা জামান আব্বাসী, জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডাক্তার শফিকুল ইসলাম, খেলাফত মজলিসের সাংগঠনিক সম্পাদক ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সল, অধ্যাপক ম্প আবদুল জলিল, মুক্তিযোদ্ধা মো: ফয়জুল ইসলাম, লেবার পার্টির ডাক্তার মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, নেজাম ইসলাম পার্টির ঢাকা মহানগরী সভাপতি মাওলানা মুসা বিন ইজহার, কবি মাহমুদুল হাসান নেজামী, শামীম সাঈদী, ইনসাফ সম্পাদক মাহফুজ খন্দকার, মুফতী ইমরানুল বারী সি্লাম্‌ জাসাফ’র সাধারণ সম্পাদক কাজী আরিফুর রহমান প্রমুখ।

এর আগে দুপুর ১২টার পর কবির মরদেহ নেয়া হয় জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে। সেখানে কবি, সাহিত্যিকসহ সর্বস্তরের মানুষ কবির প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানান।

 প্রেস ক্লাবে প্রথম জানাজা শেষে কবিকে বায়তুল মোকাররম মসজিদে নেয়া হয়।

তার আগে দুপুর পৌনে ১২টার দিকে কবির মরদেহ নেয়া হয় বাংলা একাডেমিতে। সেখানে একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী কবির মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি না পাওয়া সোনালি কাবিনের কবি মুক্তিযোদ্ধা এই কবিকে কে শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয়নি।

আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদ গতকাল শুক্রবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) ইন্তেকাল করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। শুক্রবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে রাজধানীর ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন।

মন্তব্য